সোমবার, ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২৪ || ৭:২৪:৩৯ অপরাহ্ণ

আশুলিয়ায় আবারও ব্যবসায়ীর বাড়িতে দূর্ধর্ষ ডাকাতি

স্টাফ রিপোর্টার : আশুলিয়ায় আবারও দূধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। এবার ডাকাতরা ব্যবসায়ী ও তার পরিবারকে অস্ত্রে মুখে জিম্মি করে নগদ টাকা ও স্বর্ণালংকারসহ প্রায় কোটি টাকার মালালামাল নিয়ে পালিয়েছে।

রবিবার দিবাগত রাত আনুমানিক দুইটার দিকে আশুলিয়ার নিশ্চিন্তপুর এলাকার বাসিন্দা ব্যবসায়ী আব্দুল মান্নানের দ্বিতীয় তলা বাড়িতে এ ডাকাতির ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন পুলিশের একাধিক দল।

এদিকে একের পর এক ডাকাতির ঘটনায় আতংকিত হয়ে পরেছে আশুলিয়াবাসি।

ব্যবসায়ী মান্নান মোল্লা বলেন, আমরা দুইতলা ভবনের দুই তলায় বসবাস করি। নিচ তলায় ডাকাতরা জানালার গ্রীল কেটে ঘরে প্রবেশ করে। এসময় কিছু শব্দ শুনতে পেয়ে আমি নিচে নেমে আসি। নিচ তলায় আসা মাত্র মুখোশ পরিহিত ডাকাত তিন থেকে চারজন আমাকে ধরে বেঁধে ফেলে এবং অস্ত্রের মুখে পরিবারের সকলকেই জিম্মি করে।

তিনি দাবী করেন ডাকাতরা ঘর তছনছ করে আলমারী খুলে নগদ ২৮ লাখ টাকা ও ৭০ ভরি স্বর্ণালংকার নিয়ে পালিয়ে যায়। বাড়িতে পুরুষ মানুষ তিনি একাই ছিলেন। মেয়েরা বাড়িতে বেড়াতে আসায় অনেক স্বর্ণালংকার আলমারীতে রাখা ছিল।

আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) অমিতাভ চৌধুরী অমিত বলেন, রাতে নিশ্চিন্তপুরের ওই বাড়িতে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। আমরা ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ ঘটনাস্থলে আছি। বিষয়টি নিয়ে আমরা অলরেডি কাজ শুরু করেছি।

তবে আশুলিয়ায় একের পর এক ডাকাতির ঘটনায় আতংকিত বাসিন্দারা আইনশৃঙ্খলার অবনতির কথা নিয়ে কানা ঘুষা করতে শুনাগেছে।

এরআগে ১৪জানুয়ারী ভোর আনুমানিক চারটার দিকে আশুলিয়ার কুটুরিয়া এলাকায় ব্যবসায়ী আমির দেওয়ানের বাড়িতেও একই কায়দায় জানালার গ্রীল কটে মুখোশপরিহিত ১২/১৪ সদস্যের ডাকাত দল প্রবেশ করে। তখন বাড়ির লোকজন বিষয়টি বুঝতে পেরে চিৎকার করলে স্থানীয়রা একত্রিত হয়ে বাড়ির দিকে গেলে ডাকাত দল ফাঁকা গুলি ছুড়ে পালিয়ে যায়। তখন ধস্তাধসিস্তর সময় চোখে ছুরির আঘাত লেগে নিরাপত্তা কর্মীর আব্দুল কাদের (৫৫) মারা যায়।

পুলিশ এখনও পর্যন্ত কোন ডাকাত সদস্যকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

এবিষয়ে জানতে আশুলিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এএফএম সায়েদ ্এর সাথে কথা বলতে একাধিকবার ফোন করলেও তিনি রিসিভ করেননি এমনকি খুদে বার্তা পাঠালেও তিনি উত্তর দেননি।

খবরটি শেয়ার করুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *