1. selimsavar@gmail.com : khobar desk :

ধামরাইয়ে ব্যবসায়ীকে মারধর করে টাকা লুটের অভিযোগ

  • সর্বশেষ আপডেট : বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২৪
  • ২০ বার পড়েছেন

স্টাফ রিপোর্টার : ঢাকার ধামরাইয়ে জমি সংক্রান্ত বিষয়ে পূর্ব শত্রুতার জেরে রড সিমেন্ট ব্যবসায়ীকে তুলে নিয়ে গিয়ে মারধর করে টাকা লুটের অভিযোগ উঠেছে। এবিষয়ে থানায় অভিযোগ করলে আবারও মারধরের শিকার হয়েছেন রড সিমেন্ট ব্যবসায়ী আজিজুর রহমান পলাশ (৪৫) ও তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজার উদয় বণিক (৪২)।

আজিজুর রহমান পলাশের অভিযোগ শনিবার (২০এপ্রিল) সন্ধ্যায় মারধর ও হুমকির বিষয়ে অভিযোগ করার দুই দিন পর ধামরাই সেন্ট্রাল স্কুলের ভিতর আটকে রেখে মারধর করেছেন আজগর আলী ও তার ছেলেরা। তিনি বলেন, আমার চাচা শশুড় আজগর আলী নেতৃত্বে আমার স্থাবর অস্থাবর সকল সম্পত্তি আমার স্ত্রীর নামে ও আজগর আলীর নামে লিখে দিতে আমাকে বিভিন্ন সময়ে চাপ প্রয়োগ করে আস ছিলো। গত (২০ এপ্রিল) বিকেলে আমার ছেলে আদিল জাওয়াদ (১২) ও মেয়ে আদিবা আজরা জাবিন (৯) কে আমার বাড়িতে দিয়ে আমাকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়েযায় আমার শ্যালক। পরে আমি সন্ধ্যায় থানায় গিয়ে অভিযোগ করি। থানায় অভিযোগ দেয়ায় আজগর আলী তার ছেলে শাহাদাৎ, শামীম, আমার শ্যালক ইউসুফ, রফিক হাজীর ছেলে শাহীনও আইঙ্গনের নয়নকে নিয়ে এসে আমাকে ধরে নিয়ে বেধড়ক মারধর করেন ।এসময় আমার ম্যানেজারের কাছে সিমেন্ট বিক্রির এক লক্ষ ৬৫ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়।

আহত পলাশের বোন জানায়, আমার বাবা নাজির উদ্দিন ধামরাই ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ছিলেন, আমার ভাইয়ের চাচা শশুড় ওই আজগর আলী আমাদের সম্পদ তার নামে জোড় করে লিখিয়ে নিতে চায়। আমার ভাই তার এই প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় সে আমার ভাইয়ের উপর দুই দুই বার হামলা করে। থানায় অভিযোগ দেয়ার পরে আমার ভাইকে একবার সেন্ট্রাল স্কুলে তারপর তাদের গ্যারেজে আটকিয়ে ইট ও দেশী অস্ত্র দিয়ে প্রচন্ড মারধর করে। আমার ভাইয়ের ম্যানেজারকেও মারধর করে এবং তার সাথে থাকা সিমেন্ট বিক্রির এক লক্ষ পয়ষট্টি হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়।

হামলায় আহত উদয় বণিক জানান, পলাশ ভাইয়ের জমি জোড় করে লিখে নেওয়ার জন্য ভাইকে আটকায়ে জোড় করে সিগনেচার নিতে চায় আজগর আলী, আমি বাধা দিলে ভাইকে আর আমাকে বেধড়ক মারধর করেন। আমার কাছে সিমেন্ট বিক্রির এক লক্ষ পয়ষট্টি হাজার টাকা ছিলো সে টাকাও তারা ছিনিয়ে নেয়।

অভিযোগের ব্যাপারে জানতে আজগর আলী কে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি ফোন ধরেননি এবং তার রাইসমিলে গেলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

এবিষয়ে ধামরাই থানার সহকারী পুলিশ পরিদর্শক পাবেল মোল্লা জানান, পারিবারিক একটা বিষয়কে কেন্দ্র করে এ ঘটনা ঘটেছে। এঘটনায় কোন মামলা হয়নি, দুই পক্ষই অভিযোগ করেছে।

খবরটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন :