1. selimsavar@gmail.com : khobar desk :

ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনায় সারাদেশে উদযাপন হচ্ছে ঈদুল ফিতর

  • সর্বশেষ আপডেট : বৃহস্পতিবার, ১১ এপ্রিল, ২০২৪
  • ২৯ বার পড়েছেন

অনলাইন ডেস্ক : দীর্ঘ একমাস সিয়াম সাধনার পর মুসলিম বিশ্বের সবচেয়ে বড় উৎসব ঈদুল ফিতর। উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে আজ বৃহস্পতিবার সারাদেশে উদযাপন হচ্ছে ঈদুল ফিতর। পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায়ে ভোর ৬টা থেকে মুসল্লিরা ছুটে আসেন জাতীয় মসজিদ বাইতুল মুকাররমে।

প্রতি বছরের ন্যায় এবারও জাতীয় মসজিদ বায়তুল মুকাররমে পর্যায়ক্রমে ঈদের নামাজের ৫টি জামায়াত অনুষ্ঠিত হয়েছে। পৃথক পৃথক ইমাম ও মুকাব্বির-এর দায়িত্ব পালন করেন।

ঈদের প্রথম জামায়াত অনুষ্ঠিত হয় সকাল ৭টায়। দ্বিতীয় জামায়াত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৮টায়। প্রতি ঘণ্টায় ঈদের জামাত জাতীয় মসজিদে শেষ হয় সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে।

সকালে দুই রাকাত ওয়াজিব নামাজ আদায়ের মাধ্যমে ঈদ উদযাপনের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়েছে। রাজধানীসহ পুরো দেশেই সুষ্ঠু-সুন্দরভাবে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়।

রাজধানীতে বিভিন্ন স্থানে সকাল ৭টা থেকে শুরু করে মুসল্লিরা ঈদের নামাজ আদায় করেন।

প্রেসিডেন্ট মো. সাহাবুদ্দিন বঙ্গভবনে এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে আজ সব শ্রেণিপেশার মানুষ ও বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন।

ঈদুল ফিতর একইসঙ্গে উৎসব ও ইবাদতের আধ্যাত্মিক স্বাদ দিয়ে যায় প্রতিটি মুমিনের মনে। ধর্মীয় মূল্যবোধে পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থাপনা শৃঙ্খলিত করে। ঈদের আনন্দ-চেতনার ছোঁয়া মানবিকতা জাগ্রত করে।

পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষ্যে বুধবার থেকে তিন দিনের সরকারি ছুটি শুরু হয়েছে। সরকারি, আধা-সরকারি ভবন, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান, বেসরকারি ভবন ও সশস্ত্র বাহিনীর সব স্থাপনাতে জাতীয় পতাকা উত্তোলন এবং জাতীয় পতাকা ও ‘ঈদ মোবারক’ খচিত ব্যানার মহানগরীর গুরুত্বপূর্ণ ট্রাফিক আইল্যান্ড ও লাইট পোস্টে প্রদর্শন করা হয়েছে। ঈদুল ফিতরের আগের রাতে সরকারি ভবনগুলোসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাগুলোতে আলোকসজ্জা করা হয়েছে।

সারা দেশে বিভাগ বা জেলা, উপজেলা, সিটি কর্পোরেশন, পৌরসভা, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ এবং বেসরকারি সংস্থাগুলোর প্রধানরা জাতীয় কর্মসূচির আলোকে নিজ নিজ কর্মসূচি প্রণয়ন করে ঈদুল ফিতর উদযাপন করছে। এছাড়াও বাংলাদেশ টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতার ও বেসরকারি গণমাধ্যমগুলো যথাযথ গুরুত্ব সহকারে বিশেষ অনুষ্ঠান প্রচার ও সংবাদপত্রে বিশেষ সংখ্যা প্রকাশ করেছে।

ঈদ উদযাপন উপলক্ষ্যে দেশের সব হাসপাতাল, কারাগার, সরকারি শিশু সদন, বৃদ্ধ নিবাস, ছোটমণি নিবাস, সামাজিক প্রতিবন্ধী কেন্দ্র, আশ্রয় কেন্দ্র, সেইফ হোমস, ভবঘুরে কল্যাণ কেন্দ্র, দুঃস্থ কল্যাণ ও মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রে উন্নতমানের খাবার পরিবেশনের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

ঈদের দিন সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের বিনা টিকিটে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন ও উত্তর সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন সব শিশু পার্কে প্রবেশ এবং বিনোদনের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

ঈদের দিন সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের বিনা টিকিটে জাদুঘর, আহসান মঞ্জিল, লালবাগের কেল্লা ইত্যাদি দর্শনীয় স্থান প্রবেশ এবং তা প্রদর্শনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এ ছাড়া বাংলাদেশ শিশু একাডেমিতে শিশুদের ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

খবরটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর পড়ুন :